Auto Image Slider

আল্লাহর অস্তিত্বের যুক্তিগত প্রমাণ

আল্লাহর অস্তিত্বের যুক্তিগত প্রমাণ

আল্লাহর অস্তিত্বের যুক্তিগত প্রমাণ দিয়ে বলা হয়, আমরা জানি যে, জগতের সবকিছু (আল্লাহর যাত ও সিফাত ব্যতীত আসমান যমীন ও এতদুভয়ের মধ্যকার সবকিছু) অনিত্ব বা সৃষ্ট। আর সব অনিত্ব বা সৃষ্টবস্তুর জন্য সৃষ্টিকর্তা আবশ্যক। অতএব জগতের জন্যেও একজন সৃষ্টিকর্তা অবশ্যক।

১. জগতের সবকিছু অনিত্ব হওয়ার প্রমাণ হল জগতের যে কোন বস্তু হয় মূল উপাদান হবে নতুবা অপ্রধান বিষয়। যদি অপ্রধান বিষয় হয় তাহলে সেটা অনিত্বই। তন্মধ্যে কোন কোনটার অনিত্ব হওয়া ইন্দ্রীয়গ্রাহ্য বিষয়, যেমন অন্ধকার চলে যাওয়ার পর আলো আসা, গরমের পর ঠান্ডা আসা ইত্যাদি।

আর কোন কোনটার অনিত্ব হওয়া এভাবে প্রমাণিত যে, অপ্রধান বিষয় অস্তিত্বহীনতা কে গ্রহণ করে অর্থাৎ তা বিলীন হয়ে যায় অথচ নিত্ব জিনিস কখনও বিলীন হয় না । অতএব প্রমাণিত হল যে অপ্রধান বিষয় নিত্ব-নয় বরং অনিত্ব। আর যদি মূল উপাদান হয়, তাহলে মূল উপাদান সমূহও

 অনিত্ব। কেননা মূল উপাদান হয় শরীর হবে নতুবা পরমাণু বা যা-ই হোক, তা গতি /স্থিতি কে গ্রহণ করে থাকে বিধায় তা অনিত্ব। কারণ গতি/স্থিতি হল অপ্রধান বিষয়ঢ আর যার মধ্যে অপ্রধান বিষয় বনাম অনিত্বতা পাওয়া যায় তা অনিত্বই হয়ে থাকে। নতুবা অনিত্বকে নিত্ব বলা অপরিহার্য হয়ে দাঁড়াবে। এখন রয়ে গেল (পরবর্তি প্রষ্ঠা দ্রষ্টব্য)।

(নয়) হাউযে কাউছার সত্যঃ

কবর থেকে উঠার পর কিয়ামতের ময়দানে প্রত্যেকে পিপাসার্ত থাকবে। তাদেরকে পানি পান করানোর জন্য প্রত্যেক নবীকে আল্লাহ তা‘আলা তাঁদের মর্তবা অনুযায়ী একটি একটি হাওয দান করবেন। এই হাউয থেকে তাঁরা তাদের উম্মতকে পানি পান করাবেন, যার ফলে পিপাসা আর তাদেরকে কষ্ট দিবে না ।

আমাদের নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে যে হাউয দান করা হবে তার নাম হাউযে কাউছার । হাউযে কাউছার অন্যান্য সকল হাউয থেকে বড় হবে।

হাউযে কাউছার কুরআন ও হাদীছ দ্বারা প্রমাণিত। কুরআনে কারীমের এক আয়াতে ইরশাদ হয়েছে,

অর্থাৎ, আমি তোমাকে কাউছার দান করেছি। (সূরাঃ ১০৮-কাউছারঃ১)

হযরত আবূ যর গিফারী (রাঃ) বর্ণিত এক হাদীছে রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন,

অর্থাৎ, ঐ সত্তার কমস,যার হাতে আমার জীবন! তার (হাউযে কাউছারের) পোয়ালা জান্নাতের । তার সংখ্যা মেঘমুক্ত আকাশের গ্রহ-নক্ষত্রের চেয়ে বেশী । কেউ একবার তা থেকে পান করলে আর কখনও সে পিপাসার্ত হবে না। তর প্রস্থ তার দৈর্ঘের সমান –ওমান থেকে আইলা পর্যন্ত। তার পানি দুধের চেয়ে সাদা, মধুর চেয়ে মিষ্ট । (তিরমিযী)

আল্লাহর অস্তিত্বের যুক্তিগত প্রমাণ

যৌন তত্ত্ব

গোপন মাসাআলা

আমাদের ইউটিউব ইউটিব চ্যানেল

Leave a Comment